1. admin@prothomaloonlinenews.com : admin :
শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ১২:০৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
চীন থেকে আসছে আরও ৩০ লাখ ডোজ করোনা টিকা বর্তমান সময়ের সুন্দরী ও গুনী নাটক অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণ ‘আমরা দুঃখিত, লজ্জিত, বিব্রত, নাটক ‘ঘটনা সত্য’ বিবৃতিতে আফরান নিশো ও মেহজাবিন চৌধুরী পর্ণকাণ্ডে জেল হেফাজতে গেলেন শিল্পার স্বামী রাজ কুন্দ্রা ভিকারুননিসার অধ্যক্ষের ফোনালাপ নিয়ে তদন্ত কমিটি গঠনঃ শিক্ষা মন্ত্রণালয় ভিকারুননিসার অধ্যক্ষকে শিক্ষক নামের কলঙ্ক বললেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম রাজশাহীতে আজ ২৪ ঘণ্টায় ১৮ জনের মৃত্যু বিএনপি`র আমলেই শিক্ষাঙ্গনে সন্ত্রাস-নৈরাজ্য ছিল: তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বঙ্গোপসাগর থেকে ১১ জেলে জীবিত উদ্ধার ইমন-আইরিন নতুন সিনেমায়
ব্রেকিং নিউজ :
চীন থেকে আসছে আরও ৩০ লাখ ডোজ করোনা টিকা বর্তমান সময়ের সুন্দরী ও গুনী নাটক অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণ ‘আমরা দুঃখিত, লজ্জিত, বিব্রত, নাটক ‘ঘটনা সত্য’ বিবৃতিতে আফরান নিশো ও মেহজাবিন চৌধুরী পর্ণকাণ্ডে জেল হেফাজতে গেলেন শিল্পার স্বামী রাজ কুন্দ্রা ভিকারুননিসার অধ্যক্ষের ফোনালাপ নিয়ে তদন্ত কমিটি গঠনঃ শিক্ষা মন্ত্রণালয় ভিকারুননিসার অধ্যক্ষকে শিক্ষক নামের কলঙ্ক বললেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম রাজশাহীতে আজ ২৪ ঘণ্টায় ১৮ জনের মৃত্যু বিএনপি`র আমলেই শিক্ষাঙ্গনে সন্ত্রাস-নৈরাজ্য ছিল: তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বঙ্গোপসাগর থেকে ১১ জেলে জীবিত উদ্ধার ইমন-আইরিন নতুন সিনেমায়

ডিপিএড প্রশিক্ষণার্থীদের আর্তনাদ ও মানবতা, ফারজানা আক্তার

  • প্রকাশকাল: বৃহস্পতিবার, ৮ এপ্রিল, ২০২১
  • ২৯২২ দেখা হয়েছে

পেশাগত জ্ঞান অর্জনের আনন্দ সবারই থাকে। আর এই জ্ঞান অর্জন হয় হাতে কলমে প্রশিক্ষণ দেওয়ার মাধ্যমে। যার ফলশ্রতিতে প্রাথমিক শিক্ষায় দক্ষ মানব সম্পদ গড়ে তোলা সহজ হয় কিন্তু আনন্দপূর্ণ এই প্রশিক্ষণ অর্জনে ব্যয় ভার যদি নিজেকেই বহন করতে হয় তাহলে দক্ষ মানব সম্পদ তৈরি হবে কি করে? বর্তমান প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানগুলো প্রশিক্ষনের জন্য যে ভাতা দেন তা অত্যন্ত অপ্রতুল আসলেই। সে কারনে অনেক সময় মাসিক বেতন থেকে প্রশিক্ষনার্থীদের এই ব্যয় ভার বহন করতে হয়। এই ব্যয় বহনের ফলে হয়তো অনেক প্রশিক্ষনার্থী ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়েন,যা বাঙ্গালী জাতীর জন্য দুঃখজনক মনে করি।

আমরা জানি অনেকের বেচেঁ থাকার অবলম্বন হয়তো এ চাকরি। আবার অনেকের দায়িত্ব থাকে পরিবারের সকলের দেখাশোনা করার। এ কারনে অনেকেই ইচ্ছা করলেও ভালো মানের ইন্টারনেট ব্যবহার উপযোগী মোবাইল কিনতে পারেন না। ফলে অনেককে হয়তো নরমাল মোবাইল দিয়ে কোন রকম দিন পার করতে হয়। কিন্তু করোনাকালীন সময়ে প্রশিক্ষণ আপদকালীন হওয়াতে হয়তো এন্ড্রয়েড কিনতে হয়েছে সে নির্দিষ্ট আয় থেকে। তারা হয়তো মনে করেছেন প্রশিক্ষন ভাতা পেলে তা থেকে আর্থিক এই বিষয়টি পুষিয়ে নিতে পারবেন। কিন্তু এতো বড় একটি প্রশিক্ষন যা দ্বারা নতুন প্রজন্মের ভীত রচিত হবে তার জন্য যদি প্রশিক্ষণ ভাতায় না পান ওই প্রশিক্ষনার্থী, বুকে এক রাশ কষ্ট নিয়ে যদি তাকে থাকতে হয় তাহলে শিক্ষার ভীত কিভাবে তৈরি করবেন?

এই সময়ে অনেকেই করোনায় আক্রান্ত হয়ে হঠাৎ বিরাট সমস্যায় পড়েছেন। আমিও তার ব্যাতিক্রম নয়। এতদিন কষ্ট করে হলেও ভাল ছিলাম কিন্তু “জানেন করোনায় আক্রান্তের কারনে সেই হাসপাতালের বেডে শুয়ে টাকাগুলো আশা করেছিলাম। ফেব্রুয়ারিতে বেশি কষ্ট পেয়েছি। তখন আমাদের উপজেলায় বেতন হয়নি ওই মাসে। ১০ দিনে ইনজেকশন খরচ হয়েছে ২২ হাজার টাকা। নিয়ম করে ৩ বার এম্বুলেন্সে করে ডাক্তারের কাছে যাওয়া। তার উপর পরীক্ষার খরচ। আমিতো সবার মত লোকালে যেতে পারিনি। তখনো টাকাটা খুব আশা করেছিলাম। শারীরিক মানসিক কত টেনশন নিয়ে আমি পরীক্ষা দেয়া শুরু করেছিলাম তা শুধু আমিই জানি। এখনো হাটঁতে পারিনা ভালো মতো। “অনেকটা কষ্ট নিয়ে কথাগুলো বলছিলেন এক প্রশিক্ষণার্থী।

নাটোর জেলায় ১৫ মাসে পেয়েছে নয় হাজার টাকা যেখানে অন্যান্য পিটিআই পেয়েছে ২০ হাজার টাকা।(সেখান থেকে সংস্থাপন ফি কেটে রাখা হয়েছে) জুলাই থেকে অনলাইনে টানা নভেম্বর পর্যন্ত ক্লাস করা।ইনকোর্স এক্সামের জন্য ১৫ দিনে ৩৪ কপি বুক রিভিউ তৈরি করা এবং স্বশরীরে জমা দেওয়া। এসাইন্টমেন্ট করা,কর্মসহায়ক গবেষণা,একশন রিচার্স,কেস স্টাডি সবই করা হয়েছে। ২২ ফেব্রুয়ারি থেকে ১৫ মার্চ পর্যন্ত এক্সামও দেওয়া হয়েছে সরাসরি। কেউ নতুন করে বাসা নিয়েছে। কেউ হোস্টেলে উঠেছে। অনেকে প্রথমদিকের জিনিসপত্র হোস্টেল থেকে নিয়ে যায়,পুনরায় পরীক্ষার জন্য নিয়ে আসে। সাথে কত রকম হয়রানি হয়েছে সে সব গল্প অকথিত রয়েছে। অার্থিক খরচ তো আছে।

আবার ৪র্থ টার্মের কাজও শুরু হয়ে গিয়েছে। সেখানে রয়েছে আর্থিক সংশ্লিষ্টতা। হয়তো কর্তৃপক্ষ সদয় দৃষ্টি দিবেন। করোনাকালীন প্রশিক্ষণ ভাতাটা কিছুটা সহায়তা প্রদান করবে শিক্ষকদের।হয়তো সময় লাগবে ভাতা প্রদানে।আশা করি,খুব শীঘ্রই ২০২০-২১ প্রশিক্ষণার্থী ডিপিএড ভাতা প্রদানে কর্তৃপক্ষ সদয় দৃষ্টি দিবেন।

কবির ভাষায় বলতে চাই –
আমাদের দেখা হোক মহামারী শেষে
আমাদের দেখা হোক জিতে ফিরে এসে
আমাদের দেখা হোক জীবাণু ঘুমালে
আমাদের দেখা হোক সবুজ সকালে
আমাদের দেখা হোক কান্নার ওপারে
আমাদের দেখা হোক সুখের শহরে।

ফারজানা আক্তার
ডিপিএড প্রশিক্ষণার্থী(২০২০-২০২১)
পটিয়া, পিটিআই চট্টগ্রাম

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

প্রথম আলো অনলাইন নিউজ © All rights reserved

প্রযুক্তি সহায়তায় BTMAXHOST